হ্যাকিং কি, হ্যাকার কারা, হ্যাকিং সম্পর্কে, হ্যাকার, হ্যাকিং নিয়ে বিস্তারিত

হ্যাকিং সম্পর্কে মোটামুটি এই নিয়ে সবারই একটু একটু ইনট্রেস্ট রয়েছে। আজকের এই টিউনে আমি আপনাদের সাথে আলোচনা করব হ্যাকিং এবং হ্যাকার সম্পর্কে। হ্যাকিং সম্পর্কে আরো পোস্ট আমাদের সাইটে পাবলিশ করা আছে। সেই পোস্টগুলো হ্যাকিং ক্যাটেগরিতে পাবেন।

Also read: Email Spoofing!! ইমেইল স্পুফিং কী ? হ্যাকিং এর নিজ্ঞা টেকনিক!!

হ্যাকিং কি?

হ্যাকিং একটি প্রক্রিয়া যেখানে কেউ বৈধ অনুমতি ছাড়া কোন কম্পিউটার বা কম্পিউটার নেটওয়ার্কে প্রবেশ করে। যারা এই হ্যাকিং করে তারা হচ্ছে হ্যাকার। আমরা প্রায় সবাই জানি হ্যাকিং বলতে শুধু কোন ওয়েবসাইট আবার অনেকের ধারণা হ্যাকিং বলতে কম্পিউটার বা কম্পিউটার নেটওয়ার্ক হ্যাক করা। আসলে কি তাই? না আসলে তা না। হ্যাকিং অনেক ধরনের হতে পারে। আপনার মোবাইল ফোন, ল্যান্ড ফোন, গাড়ি ট্রাকিং, বিভিন্ন ইলেক্ট্রনিক যন্ত্র ও ডিজিটাল যন্ত্রপাতি বৈধ অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করলে তাও হ্যাকিং এর আওতায় পড়ে। হ্যাকার রা সাধারণত এসব ইলেক্ট্রনিক যন্ত্র ও ডিজিটাল যন্ত্রপাতির ত্রুটি বের করে হ্যাক করে থাকে।

হ্যাকিং কি সেটা তো জানলাম। কিন্তু এই হ্যাকিং কে করে? মূলত হ্যাকার হ্যাকিং করে থাকে। তো, এবার জেনে নেওয়া যাক হ্যাকার সম্পর্কে।

হ্যাকার

সহজ কথায় যার হ্যাক করে তারাই হচ্ছে হ্যাকার। হ্যাকাররা বিনা অনুমতিতে কোন নেটওয়ার্ক বা সিস্টেমে এর প্রবেশ করে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ তথ্য চুরি বা সিস্টেমের ক্ষতি সাধন করে। এরা যে সিস্টেম হ্যাকিং করবে ঐ সিস্টেমের গঠন, কার্য প্রনালী, কিভাবে কাজ করে সহ সকল তথ্য জানে। সিস্টেমে সামান্য ত্রুটি বা কোডিং/ প্রোগ্রামের বাগ হ্যাকারের হ্যাক করার মূল হাতিয়ার।

প্রোগ্রামিং সম্পর্কে আরো জানতে এই টিউনটি পড়ুনঃ প্রোগ্রাম কী? প্রোগ্রামিং কী? প্রোগ্রামার কে? প্রোগ্রামিং ভাষা!! কেন ও কিভাবে প্রোগ্রামিং শিখব? [মেগা টিউন]

হ্যাকারের প্রকারভেদ

সব হ্যাকার যে খারাপ তা কিন্তু নয়। একেক হ্যাকারের কাজ একেক রকম। হ্যাকারকে আমরা তিন ভাবে ভাগ করতে পারি।
  1. সাদা টুপি হ্যাকার (White hat hacker)
  2. ধুসর টুপি হ্যাকার (Grey hat hacker)
  3. কালো টুপি হ্যাকার (Black hat hacker)

সাদা টুপি হ্যাকার (White hat hacker)

সবাই তো মনে করে হ্যাকিং খুবই খারাপ কাজ তাই না? না হ্যাকিং খুব খারাপ কাজ না। White hat hacker হ্যাকাররাই তার প্রমান করে যে হ্যাকিং খারাপ কাজ না। যেমন একজন white hat hacker একটি সিকিউরিটি সিস্টেমের ত্রুটি গুলো বের করে এবং ঐ সিকিউরিটি সিস্টেমের মালিকে ত্রুটি দ্রুত জানায়। এবার সিকিউরিটি সিস্টেমটি হতে পারে একটি কম্পিউটার, একটি কম্পিউটার নেটওয়ার্কে্‌ একটি ওয়েব সাইট, একটি সফটোয়ার ইত্যাদি। এদের কে ইথিক্যাল হ্যাকার বলা হয়।

ধুসর টুপি হ্যাকার (Grey hat hacker)

Grey hat hacker হচ্ছে দু মুখো সাপ। কেন বলছি এবার তা ব্যাখ্যা করি। এরা যখন একটি একটি সিকিউরিটি সিস্টেমের ত্রুটি গুলো বের করে তখন সে তার মন মত কাজ করবে। তার মন ঐ সময় কি চায় সে তাই করবে। সে ইচ্ছে করলে ঐ সিকিউরিটি সিস্টেমের মালিকে ত্রুটি জানাতে ও পারে অথবা ইনফরমেশন গুলো দেখতে পারে বা নষ্ট ও করতে পারে। আবার তা নিজের স্বার্থের জন্য ও ব্যবহার করতে পারে। বেশির ভাগ হ্যকার রাই এ ক্যাটাগরির মধ্যে পড়ে।

কালো টুপি হ্যাকার (Black hat hacker)

আর সবছেয়ে ভয়ংকর হ্যাকার হচ্ছে এ Black hat hacker । এরা কোন একটি সিকিউরিটি সিস্টেমের ত্রুটি গুলো বের করলে দ্রুত ঐ ত্রুটি কে নিজের স্বার্থে কাজে লাগায়। ঐ সিস্টেম নষ্ট করে। বিভিন্ন ভাইরাস ছড়িয়ে দেয়। ভাবিষ্যতে নিজে আবার যেন ঢুকতে পারে সে পথ রাখে। সর্বোপরি ঐ সিস্টেমের অধিনে যে সকল সাব-সিস্টেম রয়েছে সে গুলোতেও ঢুকতে চেষ্টা করে।
সাদা, কালো, ধূসর টুপিওয়ালা হ্যাকারদের সম্পর্কে তো জানলেন। এই টুপিওয়ালা ছাড়াও আরো কয়েক ধরনের হ্যাকার রয়েছে। নিচে তেমন কিছু হ্যাকারদের তুলে ধরা হলো -

Anarchists: Anarchists হচ্ছে ঐ সকল হ্যাকার যারা বিভিন্ন কম্পিউটার সিকিউরিট সিস্টেম বা অন্য কোন সিস্টেম কে ভাঙতে পছন্দ করে। এরা যেকোন টার্গেটের সুযোগ খুজে কাজ করে।
Crackers: অনেক সময় ক্ষতিকর হ্যকারদেরকে ক্র্যাকার বলা হয়। এদের শক বা পেশা হচ্ছে বিভিন্ন পাসওয়ার্ড ভাঙ্গা, Trojan Horses, ক্ষতিকর সফটওয়্যার তৈরি করা। ক্ষতিকর সফটওয়্যারকে Warez বলে।

Script kiddies: এরা প্রকৃতপক্ষে কোন হ্যাকার নয়। এদের হ্যাকিং সম্পর্কে তেমন কোন বাস্তব জ্ঞান নেই। এরা বিভিন্ন ধরনের Warez ডাউনলোড করে বা কিনে ব্যবহার করে থাকে।

এই ছিল আজকের টিউন। আশা করছি টিউনটি ভালো লেগেছে। টিউনটি কেমন লাগল তা জানাতে অবশ্যই কমেন্ট করবেন। আর, পরবর্তী টিউন আপনি কি নিয়ে চান তাও কমেন্টের মাধ্যমে জানাতে পারেন। এতক্ষণ ধৈর্য নিয়ে টিউনটি পড়ার জন্য ধন্যবাদ।